হাটহাজারীতে বিয়ের ৯বছর পরও যৌতুকের জন্য ৩ সন্তানের জননিকে মারধর করেন স্বামী

বিয়ের ৯বছর পার হলেও থেমে নেই যৌতুকের জন্য তিন সন্তানের জননি কে মারধর। এ ধরনের একটি অভিযোগ উঠেছে উপজেলার লালিয়ারহাট এলাকার দুলা মিয়া সওদাগর বাড়ির নুরুল ইসলাম ড্রাইভারের পুত্র মোঃ বখতিয়ারের (৩৫) বিরুদ্ধে। বুধবার (১৫মে) সন্ধায় যৌতুকের জন্য মারধর করে স্ত্রীকে রক্তাক্ত অবস্থায় বের করে দেয় বখতিয়ার। স্থানীয়দের সহযোগিতায় পিতৃালয়ে এসে চিকিৎসা শেষে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন হাটহাজারী মডেল থানায়।

শারিরিক ও মানসিক নির্যাতনের শিকার মিনা আক্তার জানান, ৯বছর আগে সামাজিকভাবে বিয়ে হয় অভিযুক্ত বখতিয়ার সাথে। তিনবছর আমরা সুখে শান্তিতেই ছিলাম কিন্তু তিনবছর পর থেকে আমাকে ৩লক্ষ টাকা যৌতুকের জন্য শারিরিক ও মানসিক নির্যাতন করতে থাকে। আমি নিরুপায় হয়ে ভবিষ্যত সুখের আসায় পিতৃালয় থেকে ৫০হাজার টাকা এনে দিই। টাকা দেয়ার পর কিছুদিন আবারো ভালভাবে সংসার করতে থাকে কিন্তু হঠাৎ ঘটনার দিন সন্ধা ৭টার দিকে আমাকে আবারো টাকার জন্য মারধর কিল-ঘুষি করতে থাকে এক পর্যায়ে লোহার রট দিয়ে মাথায় আঘাত করে মাথা ফাটিয়ে দেয়। এসময় যৌতুকের টাকা না দিলে দ্বিতীয় বিয়ের হুমকি আমার দুগ্ধজাত সন্তান মুনতাসিরসহ আরো দুই সন্তানকে ওর হেফাজতে নিয়ে রক্তাক্ত অবস্থায় আমাকে এক কাপড়ে বের করে দেয়। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় পিতৃালয়ে গিয়ে আমার ভাইদের সহযোগিতায় চিকিৎসা শেষে থানায় লিখিত অভিযোগ করি।

মিনা আক্তার কান্নারত অবস্থায় প্রতিবেদককে বলেন আমার দুগ্ধজাত সন্তানকে দ্রুত উদ্ধারের দাবি জানাচ্ছি। আমার সন্তানটি দুধ না খেলে মারা যাবে। নির্যাতনের শিকার মিনা আক্তারের ভাই হাটহাজারী পৌরসভা ১নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ ইবরাহিম বলেন, আমার নির্যাতিত বোন মিনা আক্তার থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছে। আইনই তদন্তপূর্বক সঠিক বিচার করবে। আমি যৌতুকলোভি বখতিয়ারের বিচার দাবি করছি এবং আমার দুগ্ধজাত ভাগিনাকে পাষুন্ড পিতা থেকে দ্রুত উদ্ধারের দাবি জানাচ্ছি।

মিনা আক্তার পশ্চিম দেওয়ান নগর মুন্সি বাপের বাড়ির মৃত আবু তৈয়বের কন্যা।
জানতে চাইলে থানার ওসি মোঃ বেলাল উদ্দিন জাহাঙ্গীর বলেন, দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য অফিসারকে বলে দিচ্ছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *