বলাৎকারের অভিযোগে মাদ্রাসা শিক্ষক আটক থানায় মামলা

হাটহাজারী প্রতিনিধি:-হাটহাজারীতে বলাৎকারের অভিযোগে তৌহিদুল ইসলাম(৩০) নামে এক মাদ্রাসার শিক্ষককে আটক করেছে পুলিশ। সে বাঁশখালী থানাধীন বইলগাঁও মোল্লার পাড়ার সিরাজুল ইসলামের পুত্র। শনিবার দিবাগত রাতে উপজেলার উত্তর মাদার্শার মদীনা একাডেমি নামক একটি নূরাণি মাদ্রাসায় বলাৎকারের ঘটনাটি ঘটে। বলাৎকারের ঘটনায় ভিকটিম শিশুর পিতা বাদী হয়ে হাটহাজারী মডেল থানায় একটি মামলা রুজু করেন যার নং- ১৩ তাং ৮/৫/২০১৯ ইং। মামলার বাদী জানান, মাসতিনেক আগে তার দু ছেলেকে ভর্তি করান ঐ নূরাণী মাদ্রাসার হেফজ বিভাগে।

ঘটনার দিন শনিবার রাত ১১টা থেকে সাড়ে ১১টার কোন এক সময় হেফজ বিভাগের শিক্ষক তৌহিদুল ইসলাম তার ছোট সন্তানকে রুমে নিয়ে জোরপূর্বক বলাৎকার করে এবং কাউকে না বলার জন্য ভয়-ভীতি লাগায়। ছেলে রুমের দরজা খুলে দৌড়ে মাদ্রাসা থেকে প্রায় অর্ধ কিলোমিটার দুরে গেলে স্থানীয়রা কারণ জানতে চাইলে তাদের ঘটনা খুলে বলে। তাৎক্ষণিক স্থানীয়রা মাদ্রাসা থেকে এক কিলোমিটার দূরে পলায়নরত অবস্থায় উত্তর মাদার্শা পাখির বাপের বাড়ির ঘাটা সংলগ্ন ঘাবগুল গাছের নিচ থেকে অভিযুক্তকে আটক করে ঐ মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি, সম্পাদক ও স্থানীয় ইউপি সদস্যের উপস্থিতিতে রাত আড়াইটার দিকে পুলিশে সোপর্দ করে।

থানার এসআই আবুল বাশার জানান, রাতে ফোন পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে স্থানীয়দের রোষানল থেকে তাকে উদ্ধার করি। জিজ্ঞাসাবাদে অভিযুক্ত শিক্ষক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছে। সে অনুতপ্ত বলেও আমাদের জানিয়েছে। থানার ওসি বেলাল উদ্দিন জাহাঙ্গীর বলেন, এটা আসলেই দুঃখজনক এ ধরনের ঘটনা মেনে নেয়া যায়না। ভিকটিমের পিতা বাদী হয়ে ৩৭৭ধারায় অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করেছেন। আগামিকাল আটককৃতকে আদালতে পাঠানো হবে। আর ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে পাঠানো হবে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনা সত্য বলে ধারনা করছি বলে জানান ওসি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *