রাউজানে সন্ত্রাসী গ্রেপ্তারের দাবীতে আবারও সড়ক অবরোধ

রাউজানে মুনিরীয়া যুবতবলীগ কমিটির অভিযুক্ত সন্ত্রাসী গ্রেপ্তারের দাবীতে আবারও চট্টগ্রাম-কাপ্তাই সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করলেন বিক্ষুব্ধ জনতা।

২৮ এপ্রিল বিকাল তিনটা হতে উপজেলার পথেরহাটে দক্ষিণ রাউজানে সর্বস্তরের জনসাধারণ এবং সুন্নী জনতার ব্যানারে আন্দোলনকারীরা প্রথমে মানববন্ধন পরে বিক্ষোভ মিছিলের আয়োজন করে। মিছিলটি ভারতেশ্বরী প্লাজার সম্মুখ হতে শুরু করে পূর্বদিকে মিয়া মার্কেট পর্যন্ত প্রদক্ষিণ করে শেষ হয়।

মানববন্ধন চলাকালীন প্রায় দুই ঘন্টা কাপ্তাই সড়ক অবরুদ্ধ হয়ে থাকে।বিক্ষোভকারীরা মুনিরিয়া যুবলীগ কমিটিকে আন্তর্জাতিক জঙ্গি গোষ্ঠী আইএস এবং স্বাধীনতা বিরোধী জামায়াতের মদদপুষ্ট সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে আখ্যায়িত করে সড়কের উপর দাঁড়িয়ে দায়ী ব্যক্তিদের শাস্তির দাবীতে বক্তৃতা ও নানা শ্লোগানে কম্পিত করে তোলে পথের হাট এলাকা। এই সময় পথেরহাটের উভয় পাশে দীর্ঘ যানজটের কারণে সীমাহীন জনদূর্ভোগের সৃষ্টি হয়।

মিছিলপূর্বক সমাবেশে নোয়াপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মনিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও মুহাম্মদ হানিফের সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম উত্তরজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও ইউপি চেয়ারম্যান দিদারুল আলম, নোয়াপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান বাবুল মিয়া, অধ্যক্ষ মাওলানা ইলিয়াছ নুরী, ইসলামী ফ্রন্ট চট্টগ্রাম মহানগর শাখার সাধারণ সম্পাদক নাছির উদ্দিন মাহমুদ, আলহাজ আবু বক্কর সওদাগর, আহমেদ সৈয়দ, আজিজুল হক, অধ্যক্ষ ওমর ফারুক, ইসলামী ফ্রন্ট নেতা মাওলানা জিল্লুর রহমান হাবিবী, আমান উল্লাহ আমান, ২০০৮ সালে মুনিরীয়া তাবলীগ কর্তৃক হামলার শিকার মঈনুদ্দিন রেজবী, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর সিকদার, এম যুবলীগ নেতা বেলাল উদ্দিন, উপজেলা যুবলীগের সহ সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, অর্থ সম্পাদক আজম রাশেদ, প্রচার সম্পাদক দিদারুল আলম, সদস্য জসিম উদ্দিন, ইউপি সদস্য জাহাঙ্গীর আলম, হাবিবুল ইসলাম চৌধুরী, অধ্যাপক সৈয়দ জামাল উদ্দিন, কামাল উদ্দিন, শফিউল আজম কোম্পানী, সেকান্দর হোসেন, এস এম হাফিজুর রহমান, কাউসার উদ্দিন লিটন, নুরুল ইসলাম, অধ্যক্ষ মাওলানা শওকত হোসেন রেজবী, জাহেদুল হক, মফিজুল আলম শাহ, হাফেজ সালাহ উদ্দিন, নুর আহমেদ, মাওলানা অলিয়র রহমান, নওশাদ হোসাইন, আব্দুল্লাহ আল মামুন, ইউনুছ আলম প্রমুখ।সমাবেশে বক্তারা বলেন, মুনিরীয়া যুব তাবলীগ কমিটি একটি জঙ্গী সংগঠন।

এ সংগঠনের কর্মীদের হাত থেকে ধর্মীয় বক্তা থেকে শুরু করে রাজনৈতিক নেতা, মুক্তিযোদ্ধা, শিশুসহ সকল শ্রেণীর মানুষ বিভিন্ন সময় ধারাবাহিকভাবে হামলার শিকার হয়ে আসছে। সংগঠনের সাথে আর্ন্তজাতিক জঙ্গি সংগঠন আইএসের কোন সম্পৃক্ততা আছে কিনা খতিয়ে দেখা দরকার প্রশাসনের।

অন্যথায় এ দেশকে তারা সন্ত্রাসীর রাজত্বে পরিণত করে তুলবে। সেই সাথে তারা দায়ী ব্যক্তিদের দ্রুত গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানান। অন্যথায় কঠোর আন্দোলন গড়ে তুলো হবে বলে হুঁসিয়ারী উচ্চারণ করেন।

উল্লেখ্য যে গত ১৭ এপ্রিল সন্ধ্যায় মুনিরিয়া যুবতবলীগ কমিটির উগ্র সমর্থক কর্তৃক সন্ত্রাসী স্ট্যাইলে আওয়ামীলীগ নেতা মোজাম্মেল হক নির্মমভাবে হামলা ও মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল আনোয়ার লাঞ্চনার শিকার হন। এরপর হতে টানা ১২ দিন ধরে রাউজানে বিভিন্ন স্থানে নানা রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের ব্যানারে মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিলসহ নানা কর্মসূচীর মাধ্যমে দায়ী ব্যক্তিদের শাস্তির দাবীতে আন্দোলন চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *