হাটহাজারীতে জলাতঙ্কে আক্রান্ত গরুর মাংস বিক্রি

শনিবার (২৭ এপ্রিল) সকালে হাটহাজারী উপজেলায় পাগলা কুকুরের কামড়ে জলাতঙ্কে আক্রান্ত একটি গরুর মাংস বিক্রি করেছে হাটহাজারী বাজারে স্থানীয় কসাই হাচি মিয়া।

এ ঘটনা সাংবাদিকদের মাধ্যমে জানতে পেরে ইউএনও রুহল আমিন অভিযানে যাওয়ার আগেই পালিয়ে যায় কসাই হাচি মিয়া। ঘটনাস্থল থেকে ১০কেজি গরুর মাংস ও মাংস বিক্রির সরঞ্জামাদি জব্দ করে বাজার কর্তৃপক্ষকে দোকনটি বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন ইউএনও রুহল আমিন।

জানা যায়, হাটহাজারী পৌর এলাকার মধ্যম মীরেরখীল গ্রামের একটি গরু(ষাঁড়)কে কুকুরে কামড়ালে গরুটি জলাতঙ্ক হয়ে পাগল ও মৃতপ্রায় হয়ে পড়ে। এমতাবস্থায় স্থানীয় কসাই হাচি মিয়া এক দালালের মাধ্যমে জলাতঙ্কে আক্রান্ত গরুটি ১২হাজার টাকার বিনিময়ে কিনে নেন। গরু জবাই’র পর পরই কাঁচাবাজারে প্রতিদিনের মত নির্দিষ্ট স্থানে মাংস বিক্রি শুরু করেন। এদিকে স্থানীয় সাংবাদিকদের সহযোগিতায় ইউএনও রুহল আমিন ঘটনাটি জানতে পেরে দ্রুত বাজারে অভিযানে নামেন, কিন্তু ততক্ষণে এক মন ওজনের গরুটির ৩০কেজি মাংস বিক্রি করে পেলেন হাচি মিয়া। এরই মধ্যে অভিযানের খবর পেয়ে কসাই হাচি মিয়া পালিয়ে যায়।

ইউএনও রুহুল আমিন বলেন, জলাতঙ্কে আক্রান্ত একটি গরুর মাংস বিক্রির খবর পেয়ে অভিযানে আসি। মাংস বিক্রেতা পালিয়ে যাওয়ায় তাকে আটক করা সম্ভব হয় নি। তবে অভিযুক্ত কসাইকে হাটহাজারীতে প্রতারণার দায়ে আর ব্যবসা করতে দেয়া হবে না। ১০কেজি অবিক্রিত মাংস ও সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়েছে।

এদিকে হাটহাজারী প্রাণিসম্পদ অফিসের ভেটেরিনারি সার্জন ডাঃ মাসুদ, জলাতংক রোগের ভাইরাস বহণকারী এ মাংস স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর ও তা না খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *